মাহিয়া মাহি এখন পাবলিক টয়লেটের মতো: জেনিফার

চিত্র নায়কা মাহিয়া মাহি ও জেনিফারের দ্বন্দ্ব ব্যক্তিগত পর্যায়ে রুপ নিয়েছে। মাহিয়া মাহি সংবাদ সম্মেলনে জেনিফারকে ধুয়ে দেওয়ার পর এবার মাহিয়া মাহির ব্যক্তিগত জীবন তুলে ধরেন এই নারী প্রযোজক। মাহির ব্যক্তিগত জীবন খোলা চিঠির মতো উল্লেখ করে জেনিফার বলেন মাহিয়া মাহি এখন পাবলিক টয়লেটের মতো। যে কেউ তাকে ব্যবহার করতে পারে।

পাবলিক টয়লেট যেমন মানুষ টাকা দিয়ে ব্যবহার করে মাহিও ঠিক তাই। এই সময় মাহিকে পাবলিক টয়লেটের সাথে তুলনা করার পাশাপাশি পরিচালক মানিকের সাথে মাহির ব্যক্তিগত বিষয় সামনে আনেন তিনি। কি ধরনের সম্পর্ক তাদের মধ্যে তা খোলে বলেন প্রযোজক জেনিফার।

সুটিং সেটের ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাহির মেকাপ নিতে তিন থেকে চার ঘন্টা সময় লাগে কারণ সুটিংয়ের আগে সে বিভিন্ন জায়গায় সময় কাটিয়ে সুটিং সেটে আসতো। তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় দাগের কথা উল্লেখ করে বলেন, মূলত সুটিংয়ের আগে সে যে ব্যক্তিগত সময় কাটাতো আর সেই কারণে যে দাগগুলো তার শরীরে হতো সে দাগগুলো ঢাকতে তার মেকাপ নিতে এত দেরি হতো।

এসময় সাবেক মন্ত্রী মুরাদের সাথে ফোনালাপের প্রসঙ্গ টেনে বলেন সে কি ধরনের নায়কা আপনারা সবাই জানেন। সেই ফোনালাপ আমরা সবাই শুনেছি। যে স্বামী থাকা অবস্থায় মন্ত্রীর সাথে বিভিন্ন হোটেলে রাত কাটায় তার কথা বলতে রুচিতে বাঁধে বলে জানান তিনি।

মাহির পারিশ্রমিকের ব্যপারে জেনিফার বলেন সুটিং শুরুর পর পরই পাওনা পরিশোধ করা হয়েছে।

আশির্বাদ সিনেমার সুটিং এর সময়ে মাহিয়া মাহি নারিকেল তেল চেয়েছিলো ওই সময়ে প্রোডাকশন বয় নারিকেল দিতে অস্বীকৃতি জানালে বেঁকে বসেন মাহি। ওই ছেলেকে বাদ না দিলে মাহি সুটিং করবে না বলে জানাই। মাহির কারণে ওই ছেলেকে সুটিং সেট থেকে বা দিতে হয়েছিল বলে জানায় ছবিটির প্রযোজক জেনিফার।

Leave a Comment