রেফারিকে ঘুসি মেরে ফেলে দিলেন ক্লাব সভাপতি

খেলা শেষে মাঠে ঢুকে রেফারির মুখে প্রচন্ড রাগে ঘুসি মারেন তুরস্কের ফুটবল অ্যাঙ্কারাগুচুর ক্লাবের সভাপতি। এমন কাণ্ডের পর তুরস্কের ফুটবল লিগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

রেফারিকে ঘুসি মেরে ফেলে দিলেন ক্লাব সভাপতি, সেই অ্যাঙ্কারাগুচুর ক্লাবের সভাপতি ফারুক কোচাকে সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার করেছে তুরস্কের পুলিশ। পরে পুলিশ জানাই যে, ফারুক সেই রেফারিকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন যেকোনো মুহুর্তে রেপারিকে হত্যা করতে পারে।

সভাপতি ফারুক কোচা ছাড়াও সন্দেহজনকভাবে আরো দুইজনকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছে তুর্কির আদালত। পরে তাদের গ্রেফতার করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আইনমন্ত্রী ইয়ালম্যাজ।

গত সোমবার হয়ে যাওয়া তুরস্কের সুপার লিগে অ্যাঙ্কাগুচুর ম্যাচটি ছিল কেকুর রিজেসপোরের। সেই ম্যাচটিতে ১-১ গোলে ড্র হয়ে যায়। পরে ৯৬ মিনিটের মাথায় গোল খায় অ্যাঙ্কারগুচু। এরপর পরই রেগে যায় ক্লাবের সভাপতি ফারুক কোচা।

এরপরই মাঠে ঢুকে রেফারি হালিল উমান্ট ম্যালের মুখে সজোরে ঘুসি মারেন। পরে হালিল অভিযোগ করে বলেনছেন যে, ফারুক কোচা আমাকে বাম চোখের নিচে ঘুসি মেরেছে। ঘুসির আঘাতে আমি মাটিতে পড়ে গেছি। আমি যখন মাটিতে পরে ছিলাম, তখন অন্য লোকেরা এসে আমার মুখে এবং আমার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় বহুবার লাথি মেরেছিল। কোচা আমাকে বলেছিল যে, আমি তোমাকে চিরতরে শেষ করে ফেলব।

তুরস্কের ফুটবল লিগের সভাপতি মেহমেত বুয়ুকেক্সি এ ঘটনার পর পরই বলেন, লিগের সব ম্যাচ আপাতত স্থগিত থাকবে। কারণ এই ঘটনাটি তুরস্কের ফুটবলের লিগের জন্য খুব খুব লজ্জার।

ক্লাবের কর্মকর্তা এবং ফুটবলারদের নিয়ে বিশৃঙ্খল অবস্থা তৈরি হয় মাঠের মধ্যেই। হাসপাতালে নিয়ে যেতে হয়েছে রেফারি হালিলকে। তার মুখের হাড় ভেঙেছে বলে জানা গেছে।

এদিকে আহত হয়েছেন সভাপতি কোচাও। তারও হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে। সুস্থ হলেই তাকে গ্রেফতার করা হবে । আজকের এই ঘটনার সাথে যারা যুক্ত আছেন তাদেরও গ্রেফতার করা হয়েছে। পরে রেফারিকে মারার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ।

Leave a Comment