অভিনেতা রাজীবের ছেলে মেয়ে ও স্ত্রী কতজন | Actor Rajib family

খল অভিনেতা হিসেবেই পরিচিতি ছিলেন রাজীব। তাঁদের অভিনয়ের জায়গাটা এমনই সমৃদ্ধ ছিল যে দর্শক রীতিমতো গালমন্দ করতেন সিনেমা হলে। তবে জানার ইচ্ছা হয় বাস্তব জীবনে কেমন ছিলেন তাঁরা? পর্দার বাইরে এই খল নায়ক ছিলেন অনেকের আদর্শ।

তবে অবাক করা কিছু তথ্য আপনাকে বিস্মিত করবে চলুন জেনে নেই ওয়াসীমুল বারী রাজীব সম্পর্কে।

অভিনেতার পাশাপাশি তিনি একজন রাজনীতিবদ ছিলেন। তবে অভিনেতা হিসেবেই তাঁর নামডাক তাঁর গম্ভীর ঝাঁজালো কণ্ঠ, রহস্যভরা চোখের চাহনি, বৈচিত্র্যময় অভিব্যক্তি যেমন দর্শককে দিত টান টান উত্তেজনা, তেমনি করত অবাক।

অভিনেতা রাজীব চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। সিনেমায় খলনায়ক হলেও পরিবার, সন্তান, ভক্ত, সহকর্মীদের কাছে তিনি ছিলেন একজন ভালবাসার আদর্শ, হাস্যোজ্জ্বল আর আড্ডাবাজ এক মানুষ। রাজীবের দুই মেয়ে (রানিসা রাজীব ও রাইসা রাজীব) আর এক ছেলে (সায়নুল বারী দ্বীপ)—কেউই এখন ঢালিউডের সঙ্গে যুক্ত নন।

২০১৯ সালে এক সাক্ষাৎকারে রাজীবের ছেলে বলেন যে, বাবা চলচ্চিত্র নিয়ে বাসায় কখনো কথা বলতেন না। বাবার পারিবারিক জীবন আর চলচ্চিত্রজগৎ আলাদা ছিল। আমার বাবা একজন খোলামেলা ও সাদামাটা ধরনের মানুষ ছিলেন। ইসমত আরাকে বিয়ে করেন রাজীব তার স্ত্রী ছিলেন মার্শাল আর্টের ওস্তাদ জাহাঙ্গীর আলমের চাচাতো বোন।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন যে, সিনেমায় দেখানো চরিত্রগুলো থেকে বিপরীত ছিলেন আমার বোন জামাই রাজীব। শুটিং সেটে বসে কখনোই চড়া মেজাজে বা উচ্চ স্বরে কথা বলতেন না। ১৯৮২ সালে কাজী হায়াতের হাত ধরেই ছবিতে আসা তার প্রথম অভিনয় করা ছবির নাম ‘খোকন সোনা’।

২২ বছরের অভিনয় জীবনে প্রায় চার শতাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন রাজীব। ১৯৫২ সালের ১ জানুয়ারি পটুয়াখালীতে তাঁর জন্ম। ২০০৪ সালে ১৪ নভেম্বর ৫২ বছর বয়সে ক্যানসারে হয়ে অকাল মৃত্যু বরণ করেন এই শক্তিমান অভিনেতা।

All Bangla Newspaper or News Free to read free from same place and know more about them All Newspaper Bangla best.

Leave a Comment