শাশুড়ির কথায় কষ্ট পেলে কি করবো | What To Do If You Suffer

বউ শাশুড়ির মধ্যে ঝগড়া এটা নতুন কিছু নয়। সৃষ্টির শুরু থেকে এটা হয়ে আসছে আর আমার মনে হয় এটা বন্ধও করা যাবে না। বিয়ে করলে এই সমস্যাগুলোর মধ্যে পরতে হবে এটা আচঁ করতে পেরে অনেকে বিয়ে করতেও ভয় পায়। তারপরও সামাজিকতার দিকে তাকিয়ে হলেও একটু বনিবনা করতে হবে। বিয়ে করতে হবে আর সংসার তো করতে হবেই! সংসারে অনেক ঝড় ঝাপটা মানুষিক অবসাদ আসবে তাই একটু বুদ্ধি খরচ করে এর মোকাবেলা করতে হবে। চলুন তাহলে জেনে নেই কোন বিষয় মাথায় রাখলে সংসারে অশান্তি অনেকটাই দূরে চলে যেতে পারে।

ভুলে যাবেন না যে আপনার স্বামীও তার সন্তান। আপনার স্বামীর জন্য আপনার শাশুড়ির সাথে প্রতিযোগিতা করা বোকামি। আপনি আপনার শাশুড়ির চেয়ে সর্বক্ষেত্রে ভাল – বরের কাছে এটি নিয়ে বড়াই করার দরকার নেই। তিনি আপনার চেয়ে বড় এবং অভিজ্ঞ। সুতরাং এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে তিনি আপনার চেয়ে ভাল পরিবার পরিচালনা করতে সক্ষম হবে। কখনও কখনও এটি গ্রহণ করলে ভুল নেই। শাশুড়ির প্রতি শ্রদ্ধা শ্বশুর বাড়িতে আপনার স্থান উন্নত করবে।

আপনার কাজ সম্পর্কে আপনার শাশুড়ির সাথে আপনার মতবিরোধ আছে? শাশুড়ির কথায় কষ্ট পেলে কি করবো! এর উত্তর হলো শাশুড়ি আগের প্রজন্মের মানুষ। অতএব, আপনার কাজ সম্পর্কে উনার স্পষ্ট ধারণা নাও থাকতে পারে। এই ক্ষেত্রে, প্রায়ই মতবিরোধ দেখা দেয়। তার কথা উপেক্ষা না করে তার পরিবর্তে, আপনার কাজ এবং কর্মক্ষেত্র সম্পর্কে আপনার শাশুড়ির সাথে কথা বলে কয়েক দিন ব্যয় করুন। বাইরের জগত সম্পর্কে আপনার শাশুড়ির ধারণা তৈরি করুন। দেখবেন সমস্যা অনেকটাই কমে গেছে।

মানুষ বুড়ো হয়ে গেলে অভিমানী হয়ে যায়। তারা অল্প কথায় রেগে যায় আবার তাড়াতাড়ি রাগ কমেও যায়। আপনার পিতামাতার ক্ষেত্রেও এমনটা হয় নিশ্চিত। আপনার শাশুড়ি যেমনটাই করুক না কোনো তার জন্য তার প্রশংসা করুন কিন্তু কখনো তার সমালোচনা করবেন না। এটা তাকে সাহস যোগাবে। শাশুড়ির ভুল হলেও ছলে বলে গল্পের ছলে শুধরে নিন। কথাবার্তা বাড়ার সাথে সাথে সম্পর্কের ভিত মজবুত হয়।

শাশুড়ির কোনো কথায় কষ্ট পেলে এই রাগকে আত্মার গভীরে রাখবেন না। আপনার শাশুড়িকে বলুন যে আপনি তার কথায় কষ্ট পেয়েছেন। তবে আপনি তর্ক করছেন এমন আচরণ করবেন না, কেবল শান্তভাবে তাকে আপনার সমস্যাটি বলুন। আপনার কথায় আপনার শাশুড়ি কষ্ট পেলে তাকে সেটা বলতে বলুন। এভাবে সম্পর্কের তিক্ততা নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

আপনার শাশুড়ির পছন্দের দিকে মনোযোগ দিন। তার ইচ্ছানুযায়ী রান্না করা, অসুস্থ হলে তার যত্ন নেওয়া, তার জন্মদিনটা একটু অন্যভাবে সেলিব্রেট করা- আপনার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টাগুলো তার হৃদয়ে জায়গা করে নেবে। বহুদিন ধরেই সংসারের টানাপোড়েনে বিরক্ত হয়েছেন, কিন্তু কেউ তার কথা ভাবলে তিনি খুশি হবেন। একে অপরের সাথে কথা বলুন, শাশুড়ির সাথে সময় কাটান। ছেলেকে তার মায়ের সাথে সময় কাটাতে বলুন। মা-ছেলের সম্পর্কের মধ্যে না আপনার না পড়াই ভালো।

All Bangla Newspaper or News Free to read free from same place and know more about them All Newspaper Bangla best.

Leave a Comment